timewatch
১৯ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, সকাল ১১:৫৪ মিনিট
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি
  6. খুলনা
  7. খেলাধূলা
  8. গণমাধ্যম
  9. চট্রগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. ঢাকা
  12. তথ্য-প্রযুক্তি
  13. ধর্মতত্ত্ব
  14. প্রকৃতি-পরিবেশ
  15. প্রবাস জীবন
শিরোনাম

ব্যবসায়িক সম্পর্ক গড়ে তুলতে উভয় দেশই অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে

প্রতিবেদক
স্টাফ রিপোর্টার
অক্টোবর ৫, ২০২৩ ৫:৩৭ অপরাহ্ণ

ভারতীয় হাইকমিশনার প্রণয় কে. ভার্মা অর্থনৈতিক অগ্রগতির স্বার্থে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য সম্পর্ক জোরদারের ওপর জোর দিয়ে বলেছেন, গত এক দশক ধরে দুটি দেশ অনেক ক্ষেত্রেই অগ্রগতি করেছে। মিঃ ভার্মা বলেন, পারস্পরিক সহযোগিতা বাণিজ্য ও ব্যবসা বৃদ্ধির একমাত্র উপায়।  ৪ অক্টোবর ২০২৩ বুধবার ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অব বাংলাদেশের (আইবিএফবি) বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ভারতীয় হাইকমিশনার প্রণয় কে. ভার্মা অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব চুক্তি (সিইপিএ) স্বাক্ষরের প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেন। তিনি বলেন, সিইপিএ চুক্তি অবশ্যই অনেকাংশে ব্যবসার সুযোগ অন্বেষণ করতে সাহায্য করে। আমরা আগের থেকে অর্থনৈতিক সম্পৃক্ততা আরও বাড়ানোর জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। বাণিজ্য সম্পর্ক বাড়ানোর জন্য, মাল্টিমডাল সংযোগ উন্নত করতে হবে।

মিঃ ভার্মা আরও বলেন, উভয় দেশের বেসরকারী খাতগুলির ব্যবসাকে একটি নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার জন্য গঠনমূলক ভূমিকা পালন করার বিকল্প রয়েছে। যেহেতু বাংলাদেশ ভারতের অন্যতম বৃহত্তম ব্যবসায়িক অংশীদার, তাই ভিসা সুবিধাসহ যেকোনো বিষয়ে বাংলাদেশে ব্যবসায়ীদের সেবা দিতে ভারত প্রস্তুত।

২০২৬ সালে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হতে চলেছে এবং এলডিসি গ্রাজুয়েশন সংক্রান্ত চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বাংলাদেশকে দ্বিপাক্ষিকভাবে কাজ করতে হবে, মিঃ ভার্মা বলেন। ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ভারসাম্যপূর্ণ বাণিজ্যের পরিমাণ দেখতে পারস্পরিক সহযোগিতা থাকতে হবে।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হুসেন বাংলাদেশের অর্থনীতির অবস্থার ওপর মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন। জনাব হোসেন তার উপস্থাপনায় বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে নীতি উদ্ভাবনের উপর জোর দেন। বাংলাদেশ সম্প্রতি অসুস্থ অর্থনৈতিক সূচক বিবেচনা করে কিছু নীতি সংস্কার করেছে এবং আশা করি নীতিটি ধীরে ধীরে কাজ করবে, মিঃ হুসেন বলেন। তিনি বিদ্যমান জিনি সহগ, আয় বৈষম্যের পরিমাপ নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। জিনি সহগ কমানো না হলে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আশীর্বাদ হিসাবে আসবে না, সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. যদি আট শতাংশ গড় প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত না করা হয়, তাহলে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই, মিঃ হুসেন বলেন।

আইবিএফবি এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জনাব মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, পারস্পরিক ব্যবসায় অন্বেষণ করার অনেক উপায় রয়েছে। বাণিজ্য ও ব্যবসায়িক ইস্যুতে ভারত কয়েক দশক ধরে অনেক সমর্থন দিয়েছে, মিঃ চৌধুরী বলেন। আইবিএফবি ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যকে এগিয়ে নিতে প্রথমে ভিসা নীতি সংশোধন করতে হবে।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে আইবিএফবি সদস্য, পণ্ডিত, অর্থনীতিবিদ, গবেষকরা উপস্থিত ছিলেন। আইবিএফবি সভাপতি হুমায়ুন রশীদ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

সর্বশেষ - ধর্মতত্ত্ব