timewatch
৩ মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, রাত ১০:৪৪ মিনিট
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি
  6. খুলনা
  7. খেলাধূলা
  8. গণমাধ্যম
  9. চট্রগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. ঢাকা
  12. তথ্য-প্রযুক্তি
  13. ধর্মতত্ত্ব
  14. প্রকৃতি-পরিবেশ
  15. প্রবাস জীবন
শিরোনাম

মাকে মুক্তি দেওয়ার অনুরোধ জানালেন অং সান সু চির ছেলে

প্রতিবেদক
স্টাফ রিপোর্টার
জুন ২৩, ২০২৩ ১:২৮ অপরাহ্ণ

২০২১ সালের ১ ফেব্রুয়ারি অভ্যুত্থানের মাধ্যমে মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন গণতান্ত্রিক সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতা দখল করে দেশটির সামরিক বাহিনী। এরপর বন্দি করা হয় অং সান সু চি ও তার দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্র্যাসির (এনএলডি) বিভিন্ন স্তরের কয়েক হাজার নেতাকর্মীকে।

সু চিকে মুক্তি দিতে সম্প্রতি দেশটির সেনাবাহিনীকে অনুরোধ জানিয়েছেন তার ছোট ছেলে কিম অ্যারিস। তাছাড়া তিনি তার মাকে সাহায্য করার জন্য বিশ্ব মোড়লদের কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

২৩ জুন ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ শুক্রবার এক প্রতিবেদনে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানায়, লন্ডনে বিবিসি বার্মিজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কিম অ্যারিস এসব আহ্বান জানান। তিনি বলেন, আমি আমার মাকে কারাগারে থাকতে দিতে পারি না। বিশ্বের উচিত আমার মাকে সাহায্য করা।

ব্রিটিশ নাগরিক কিম অ্যারিসের দাবি, সেনাবাহিনী তাকে তার মায়ের শারিরীক অবস্থা সম্পর্কে কোনো তথ্য দেয়নি। তিনি বার্মিজ দূতাবাস, ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও আন্তর্জাতিক রেড ক্রসের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছেন, কিন্তু কেউ-ই তাকে সাহায্য করতে পারেনি।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে দেওয়া নিজের প্রথম সাক্ষাৎকারে অ্যারিস বলেন, এর আগে আমি গণমাধ্যমের সামনে কথা বলতে চাইনি বা খুব বেশি যুক্ত হতে চাইনি। এমনকি, ১৯৮৯ সাল থেকে ২০১০ সালের মধ্যে প্রায় ১৫ বছর ধরে তার মাকে আটকে রাখার সময়ও অ্যারিস কোনো সংবাদমাধ্যমে কথা বলেননি।

কিম অ্যারিস বলছেন, রাজনীতি থেকে দূরে থাকাটাই আমার জন্য ভালো। আমি রাজনীতিতে জড়িত হই সেটা আমার মা কখনোই চাননি। কিন্তু এখন যেহেতু তাকে আবারও দীর্ঘ দিনের সাজা দেওয়া হয়েছে ও সেনাবাহিনী পরিষ্কারভাবে অযৌক্তিক কাজ করে যাচ্ছে, সেহেতু এখন আমার কথা বলা উচিত।

বিবিসি বলছে, সামরিক অভ্যুত্থানের আগে তার মায়ের বিরুদ্ধে সৃষ্ট নানা সমালোচনা সম্পর্কে করা প্রশ্নের জবাব দেননি অ্যারিস। এর পরিবর্তে তিনি বারবার তার মায়ের বর্তমান দুর্দশার কথা তুলে ধরছিলেন।

সর্বশেষ - ধর্মতত্ত্ব