timewatch
২৫ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, রাত ৮:২৩ মিনিট
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি
  6. খুলনা
  7. খেলাধূলা
  8. গণমাধ্যম
  9. চট্রগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. ঢাকা
  12. তথ্য-প্রযুক্তি
  13. ধর্মতত্ত্ব
  14. প্রকৃতি-পরিবেশ
  15. প্রবাস জীবন
শিরোনাম

এবার বজ্রপাত বাড়ার আশঙ্কা, বাড়তে পারে মৃত্যু

প্রতিবেদক
স্টাফ রিপোর্টার
মে ৫, ২০২৪ ৫:৩৩ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশে বজ্রপাতের প্রবণতা এবং বজ্রপাতে মৃত্যুর আশঙ্কা দুইটিই বেড়ে চলেছে। গরম বেশি হওয়ায় চলতি বছর বেশি বজ্রপাত হওয়ার আশঙ্কা করছেন আবহাওয়াবিদেরা।

বৃহস্পতিবার প্রচণ্ড তাপপ্রবাহের মধ্যে বৃষ্টির সময় বজ্রপাতে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর চলতি বছরে এ পর্যন্ত ২২ জন মারা গেছেন বলে জানিয়েছে ডিজাস্টার ফোরাম।

আবহাওয়াবিদ ও বিশ্লেষকরা বলছেন, এবার তাপ বেশি হওয়ার কারণে বজ্রপাত বেশি হবে। আর একই সঙ্গে বর্ষাকালের দৈর্ঘ্য বেড়ে যাওয়ার কারণে বজ্রপাতের পরিমাণ বেশি হবে। অন্যদিকে বজ্র প্রতিরোধ ব্যবস্থার অপ্রতুলতা এবং অসচেতনতার কারণে মৃত্যুও বেশি হওয়ার আশঙ্কা আছে।

ডিজাস্টার ফোরাম বলছে, বালাদেশে বজ্রপাতে মৃত্যু এড়াতে আগাম সতর্কতা এবং আবহাওয়া বার্তা খুব জরুরি।

ডিজাস্টার ফোরামের সদস্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ও ব্র্যাকের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও জলবায়ু পরিবর্তন কর্মসূচির পরিচালক গওহার নাঈম ওয়ারা বলেন, ‘কক্সবাজারে বৃহস্পতিবার নিহতদের মধ্যে তিনজন বজ্রপাতে মারা গেছেন। লবণ ক্ষেতে বৃষ্টির সময় লবণ ঢেকে দিতে গিয়েছিলেন তারা। বৃষ্টি যে আসবে তা আগে থেকেই বলা হচ্ছিল। তাদের আগে থেকেই সতর্ক করা যেত। তাদের আগেই লবণ ক্ষেত ঢেকে দেওয়ার জন্য সচেতন করা যেত, সেটা করা হয়নি।’

পিয়ার-রিভিউ জার্নাল হেলিয়ন-এ ‘বাংলাদেশে বজ্রপাত পরিস্থিতির ওপর জিআইএস (জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সিস্টেম)-ভিত্তিক স্থানিক বিশ্লেষণ’ প্রবন্ধে বলা হয়েছে, বেশিরভাগ প্রাণহানি বর্ষা পূর্ববর্তী মৌসুম এবং বর্ষা ঋতুতে ঘটে, যার মধ্যে উত্তর ও উত্তর-পূর্বাঞ্চল সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা। বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির কারণে বাংলাদেশে আবহাওয়ার ধরণ ও বৈশিষ্ট্য ব্যাপকভাবে পরিবর্তিত হচ্ছে। যার ফলে দীর্ঘস্থায়ী তাপপ্রবাহ, শৈত্যপ্রবাহ এবং ঋতু পরিবর্তনের মতো ঘটনা ঘটছে। এ কারণেই বজ্রপাত বাড়ছে।

ওই গবেষণার বাংলাদেশে প্রধান গবেষক অধ্যাপক ফেরদৌস আহমেদ বলেন, ‘‘বৈশ্বিক উষ্ণতার কারণে এবার বজ্রপাতের আশঙ্কা বাংলাদেশে বেশি। মেঘের সঙ্গে তাপের একটা সম্পর্ক আছে। তাপ বেশি হলে মেঘে কেমিক্যাল ও ইলেকট্রিক্যাল প্রোপার্টি বেশি হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের এখানে বর্ষা শুরু হয় আগস্টের শেষের দিকে। কিন্তু এবার আগেই শুরু হয়ে গেছে। গত মার্চেই ঝড় বৃষ্টি হয়েছে। ফলে এবার বজ্রপাত বেশি হতেই পারে।’

‘বজ্রপাতে হতাহত বাড়ার পেছনে আমাদের দায়িত্বজ্ঞানহীতা কাজ করেছে। বৃটিশরা আমাদের এখানে ফসলের ক্ষেতে বড় বড় কপার দণ্ড লাগিয়েছিলো। কিন্তু আমরা সেগুলো তুলে অর্থের লোভে বিক্রি করে ফেলেছি।’

জাতিসংঘ বলেছে, বাংলাদেশে প্রতিবছর গড়ে ৩০০ জন বজ্রপাতে মারা যায়। সেখানে যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশে মারা যায় বছরে গড়ে ২০ জনেরও কম। বাংলাদেশে গাছপালা কেটে ফেলা বিশেষ করে খোলা মাঠে উঁচু গাছ ধবংস করে ফেলা, প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা না নেওয়া এবং অসচেতনতার কারণে বজ্রপাতে মৃত্যু বাড়ছে।

ফিনল্যান্ডের বজ্রপাতবিষয়ক গবেষণা সংস্থা ভাইসালার তথ্য বলছে, বাংলাদেশে বজ্রপাতে যারা মারা যান, তাদের ৭০ ভাগই কৃষক বা যারা খোলা মাঠে কাজ করেন। এছাড়া বাড়ি ফেরার পথে ১৪ শতাংশ এবং গোসল ও মাছ ধরার সময় ১৩ শতাংশের বজ্রপাতের ফলে মৃত্যু হয়।

গওহার নাঈম ওয়ারা বলেন, ‘‘আমাদের এখানে বজ্র নিরোধে তাল গাছ লাগানো প্রকল্প ব্যর্থ হয়েছে। কারণ, যেখানে তাল গাছ লাগানো দরকার আমরা সেখানে লাগাইনি। আসলে শুধু তাল গাছ নয় যেকোনো উঁচু গাছ বজ্র নিরোধে সহায়তা করে। আসলে আমাদের গাছ লাগানোর চেয়ে গাছ কাটা বন্ধ করতে হবে। এখন জুন মাসে নড়াইলে তাল গাছের ডোঙার (এক ধরনের নৌকা) হাট বসবে। প্রতিবছর সেখানে ১০-১৫ হাজার ডোঙা বিক্রি হয়। একটা তাল গাছে দুইটা ডোঙা হয়। তাহলে সাত-আট হাজার তাল গাছ কাটা হবে এক মৌসুমে। নড়াইলের ডিসি চাইলে কিন্তু এটা বন্ধ করতে পারেন।’

সেভ দ্য সোসাইটি অ্যান্ড থান্ডারস্টর্ম অ্যাওয়ারনেস ফোরামের গবেষণা সেলের প্রধান আবদুল আলীম জানান, ‘‘বজ্রপাত বেড়ে যাওয়ার প্রধান কারণ দুইটি। বৈশ্বিক উষ্ণতা বেড়ে যাওয়া এবং বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলে গাছ বিশেষ করে মাঠের উঁচু গাছ কেটে ফেলা। হাওর অঞ্চলের মাঠে আগেও তেমন গাছ ছিল না। এখন অন্যান্য এলাকার গাছও কেটে ফেলা হয়েছে। ফলে মাঠে বা খোলা জায়গায় যেসব মানুষ থাকেন বজ্রপাতের এক কিলোমিটারের মধ্যে বিদুৎ পরিবাহী উঁচু জিনিস হিসেবে সেই মানুষকেই পায়। মানুষ না থাকলে মাঠের গবাদি পশু। ফলে মানুষ মারা যায়, গবাদি পশুও মারা যায়।’

তিনি বলেন, অনেকে মনে করেন ওই সময় গাছের তলায় আশ্রয় নেওয়া নিরাপদ। আসলে এটা ঠিক নয়। আশ্রয় নিতে হবে বাড়িঘরে বা পাকা স্খাপনার নিচে।

তার মতে, সানাতন পদ্ধতিতে লাইটেনিং অ্যারেস্টার লাগালে বজ্রনিরোধ করা যায়। এতে খরচ কম। একটি বাড়িতে ১০ হাজার টাকা খরচ করেই লাগানো যায়। আর সরকার হাওও এবং খোলা জায়গায় এগুলো লাগানোর উদ্যোগ নিতে পারে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘প্রতিবছর তিনশোরও বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে বজ্রপাতে। এটা এলার্মিং। আমরা লাইটেনিং আ্যরেস্টার লাগানোর একটা পরিকল্পনা নিয়েছি। কিন্তু এখানো প্ল্যানিং কমিশন ওটা পাস করেনি। আর কত জায়গায় এটা লাগাতে হবে তারও কোনো সমীক্ষা নেই। এটা বেশ কস্টলি। আর আমাদের যে আশ্রয়কেন্দ্র সারাদেশে আছে সেগুলোকে বজ্রপাতের সময় আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহারের উপযোগী করছি। নতুন আশ্রয়কেন্দ্রও হবে। তবে সবগুলোই আন্ডার প্রসেস বলতে পারেন।’

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, তারা বজ্রপাতের আগাম সতর্কবার্তা পাঠাতে আটটি বজ্রপ্রবণ জেলায় বজ্রপাত শনাক্তকরণ সেন্সর স্থাপন করেছে। আর একটি পাইলট প্রকল্পের কাজ চলছে, যাতে নির্দিষ্ট এলাকায় উপস্থিত লোকজনকে বার্তা পাঠানো যায়।

অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান বলেন, ‘কুমিল্লা, নোয়াখালী, যশোর , কুষ্টিয়া, ময়মনসিংহ, সিলেট ও ঢাকা বিভাগ আগে বজ্রপ্রবণ ছিল। এখন সারাদেশেই বজ্রপাত হয়। আর এই সময়ে যদি বৃষ্টিপাত হয় তাহলে বজ্রপাত অবধারিত। তাই মানুষকে সতর্ক থাকতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘এই সময় তাপ বেশি থাকার কারণে বজ্র মেঘ তৈরি হয় বেশি। আর এই মেঘের স্থায়িত্ব সর্বোচ্চ দেড় ঘণ্টা।’

সর্বশেষ - আইন-আদালত