timewatch
১৬ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, ভোর ৫:৩৩ মিনিট
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি
  6. খুলনা
  7. খেলাধূলা
  8. গণমাধ্যম
  9. চট্রগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. ঢাকা
  12. তথ্য-প্রযুক্তি
  13. ধর্মতত্ত্ব
  14. প্রকৃতি-পরিবেশ
  15. প্রবাস জীবন
শিরোনাম

কুড়িগ্রামে তিস্তার ভাঙনে সরকারি বিদ্যালয়সহ অর্ধশতাধিক বাড়ীঘর নদী গর্ভে বিলিন

প্রতিবেদক
জেলা প্রতিনিধি, কুড়িগ্রাম
জুলাই ৩, ২০২৩ ৫:৪১ অপরাহ্ণ

কুড়িগ্রামে তিস্তা নদীর ভাঙনে গত পনের দিনে শতবিঘা আবাদি জমি, অর্ধ শতাধিক বাড়ীঘর এবং একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নদীগর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। হুমকীতে রয়েছে আরো দেড় শতাধিক বাড়ীঘর। ভাঙন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড জিও ব্যাগ ফেলার উদ্যোগ নিলেও ভাঙন কবলিত মানুষ বসতবাড়ী রক্ষায় স্থায়ী প্রতিরোধ ব্যবস্থার দাবী জানিয়েছে।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জেলার উলিপুর উপজেলার বজরা ইউনিয়নের বজরা পশ্চিমপাড়া গ্রামের ভাঙন কবলিতদের নিজস্ব জমিজমা না থাকায় নদী তীরবর্তী মানুষ তাদের বাড়িঘর সড়িয়ে খোলা আকাশে ফেলে রেখেছে। ঈদের ১০/১২ দিন আগে থেকেই এখানে ভাঙন চলছিল। জিও ব্যাগ দিয়ে সরকারি স্কুলটি রক্ষার চেষ্টা করা হলেও জিও ব্যাগসহ সেটি নদী গর্ভে চলে গেছে। এসময় ভেঙে গেছে আরো ৪৫ থেকে ৫০টি বসতবাড়ী। সবজি ও পাটক্ষেতসহ শত বিঘা আবাদি জমি নদী গ্রাস করে নিয়েছে। সেই সাথে গাছপালা-পুকুর নদীতে বিলিন হয়ে গেছে।
নদী তীরবর্তী শহিদুর ইসলাম (৫৬) জানান, ভাঙনে বজরা পশ্চিমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি আর রক্ষা করা যায়নি। সেই সাথে ঠিকানা হারিয়েছে অর্ধ শতাধিক পরিবার। আরো দেড় শতাধিক বসতবাড়ী রয়েছে ভাঙনের হুমকীতে। এছাড়াও পিছনে আরো ৬ থেকে ৭শ পরিবারও রয়েছে ভাঙন আতংকে।
এই গ্রামের সত্তোর্ধ আব্দুল খালেক জানান, এই নিয়ে ১২বার আমার বসতবাড়ী নদীর কবলে পরলো। এখন দেয়ালে আমাদের পীঠ ঠেকে গেছে। নদীর উপরেই আমাদের সমস্ত জমিজমা পরে আছে। এদিকে আমাদের ঠাঁই নেয়ার মতো কিছুই নেই। বাধ্য হয়ে রাস্তার মধ্যে জিনিসপত্র রেখেছি। এখন আমারা কোথায় যাবো, কি করবো কিছুই ভেবে পাচ্ছি না।
ভাঙন কবলিত নুর আলম (৬০) জানান, গতকাল পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে লোকজন এসে ১৮০ মিটার খোলা জায়গায় জিও ব্যাগ ফেলবে বলে জানিয়েছে। জিও ব্যাগ ফেলে কোন কিছু রক্ষা করা যাচ্ছে না। আমরা ত্রাণ-টাকা-পয়সা কিছুই চাই না। আমরা তিস্তা নদীতে স্থায়ীভাবে নদী প্রতিরোধমূলক কার্যক্রম চাই।
বিষয়টি নিয়ে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ণ বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, বৃষ্টির কারণে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় অনেক জায়গায় ভাঙন হচ্ছে। আমরা সার্বক্ষণিক নজরদারীতে রেখেছি। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা, লোকায়লয় ভাঙন কবলে পরলে আমরা দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহন করি। পশ্চিম বজরায় আমরা জিও ব্যাগ ফেলার কার্যক্রম শুরু করেছি।

সর্বশেষ - ঢাকা

আপনার জন্য নির্বাচিত

‘সৃষ্টিকর্তার প্রতি কৃতজ্ঞতা আদায়ের সর্বোত্তম মাধ্যম পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) উদযাপন’

উইয়ের জয়ী পুরস্কার ও সম্মাননা পেলেন ২০ নারী

সংখ্যা নয় দক্ষ ও অভিজ্ঞ ডাক্তার চাই : স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন

এসএসসি পরীক্ষার দিন যেসব বিধিনিষেধ থাকছে ডিএমপির

সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হতে পারে নভেম্বরে

প্রাথমিকের দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষার প্রবেশপত্র ডাউনলোড শুরু ২৭ জানুয়ারি

রংপুরে খাদ্য বহনকারী ট্রাকের ধাক্কায় কৃষকের মৃত্যু

আশুরার শিক্ষা অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে উদ্বুদ্ধ করে : বাংলাদেশ ন্যাপ

সাউথইস্ট ব্যাংক এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের ঢাকা বিভাগীয় অর্ধ-বার্ষিক সম্মেলন

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় ও বিকেএমইএ’র মধ্যে সমঝোতা